সাইবার চ্যাম্প

বাংলাদেশের প্রথম ই-অ্যাওয়ারনেস অলিম্পিয়াড

ডিনেট, আইসিটি ডিভিশনের সাথে, ইউএসএআইডি’র ‘অবিরোধ: সহনশীলতার পথে’ প্রজেক্টের সহযোগিতায় ‘উগ্রবাদের বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীদের  জন্য  -অ্যাওয়ারনেস’ প্রকল্পের আওতায় বাংলাদেশের নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের নিয়ে প্রথমবারের মত আয়োজন করা হচ্ছে ই-অ্যাওয়ারনেস অলিম্পিয়াড।

এই ই-অ্যাওয়ারনেস অলিম্পিয়াডের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট হচ্ছে  www.cyberchamp.com.bd এই সাইটে থাকছে সাইবার সচেতনতা সুরক্ষিত সাইবার ব্যবহার নিয়ে বিভিন্ন শিক্ষামূলক কনটেন্ট। এই কনটেন্টগুলো যেকোনো শিক্ষার্থীরা পড়তে পারবে। সাথে কনটেন্টগুলো নিয়ে থাকছে কুইজ কনটেস্ট।

এই কুইজগুলোতে অংশ নিতে হলে প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। 

প্রতিটি কনটেন্টের ওপর একটি করে কুইজ রাউন্ড থাকবে। ওই নির্দিষ্ট কনটেন্টের মধ্যেই কুইজের উত্তর থাকবে। তাই একটি কনটেন্ট পড়ে সেই কুইজে অংশ নিলে কুইজে ভালো করা যাবে।

১। সব মিলিয়ে থাকছে ২০ রাউন্ড কুইজ।

২। প্রতি কুইজ রাউন্ডে ১০টি করে প্রশ্ন থাকবে।

৩। প্রতি সপ্তাহেই আমরা হাজির হবো নতুন একটি কুইজ নিয়ে।

৪। প্রতি রাউন্ডের জন্য নির্ধারিত সময়ে তুমি কেবল একবারই ওই কুইজটি খেলতে পারবে।

৫। প্রতি রাউন্ডে সেরা ১০ স্কোরারের জন্য থাকছে আকর্ষণীয় সব পুরস্কার। প্রতি রাউন্ডে সবার আগে দ্রুততম সময়ে সবচেয়ে বেশি সঠিক উত্তর প্রদানকারী ১০ জন হবে বিজয়ী। বিজয়ী নির্বাচন করার ক্ষেত্রে ডিনেট-এর সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত বলে গণ্য হবে।

৬। প্রতিটি রাউন্ডের নির্ধারিত সময় শেষে তোমরা কুইজটি যতবার খুশি ততবার খেলতে পারবে। এবং ঐ রাউন্ডে তোমার সর্বোচ্চ স্কোর ব্যক্তিগত সর্বমোট পয়েন্টের সাথে যোগ হবে। তবে খেয়াল রেখো, কেউ নির্ধারিত সময়ের পরে কুইজ খেললে ঐ বিশেষ রাউন্ডের ক্ষেত্রে পুরস্কারের জন্য বিবেচিত হবে না।

৭। ২০ রাউন্ড কুইজ শেষে সম্মিলিত পয়েন্ট তালিকায় থাকা সেরা শিক্ষার্থীরা পাবে ই-অ্যাওয়ারনেস অলিম্পিয়াডে আসার টিকেট।

৮। আমরা সরাসরি আসছি তোমার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে, সেখানে সুরক্ষিত সাইবারের বিভিন্ন দিক নিয়ে আমরা তোমাদের সাথে আলোচনা করবো। এসময় তোমাদেরকে অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন করতে সহযোগিতা করবো।

৯। শুধুমাত্র মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষার্থীরাই কুইজের পুরস্কারের জন্য বিবেচিত হবে। এছাড়াও সকল অংশগ্রহণকারীরা ২০ রাউন্ড কুইজ শেষে পাবে একটি অনলাইন সার্টিফিকেট। ২০ রাউন্ডের সবগুলোতে অংশ নিয়ে যারা ৬০% পয়েন্ট স্কোর করতে পারবে, তারা সবাই পাবে এই বিশেষ অনলাইন সার্টিফিকেট।


বাংলাদেশের প্রথম ই-অ্যাওয়ারনেস